madhyamik and higher secondary exam canceled 2021

বাতিল করা হলো মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা কিন্তু কিভাবে করা হবে রেজাল্টের মূল্যায়ন ?

বাতিল হয়ে গেল মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা । শেষমেশ পুরোপুরি ভাবেই বাতিল করা হলো এইবছরের অর্থাৎ 2021 সালের মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক উভয় পরীক্ষা । ইতিমধ্যেই আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মাননীয়া মমতা বন্ধোপাধ্যায় আনুষ্ঠানিকভাবে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক উভয় পরীক্ষায় বাতিল বলে ঘোষণা করলেন । আমাদের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা হওয়া এবং না হওয়ার বিষয়ে জনসাধারনের কাছে যে মতামত চাওয়া হয়েছিল তাতে মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে 79 শতাংশ এবং  উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে 83 শতাংশ জনসাধারন পরীক্ষা না হওয়াতে মতামত প্রদান করেছেন । মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী জানান যে, জনসাধারনের উক্ত মতামত, বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রদান করা মতামত তারওপর সুপ্রিমকোর্টের আদেশ এবং 21 লক্ষ ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থের কথা সমস্তকিছু নজরে রেখে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে । 

মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা বন্ধের অথবা পরীক্ষার পদ্ধতি পরিবর্তন করার সংগ্রাম যেন সফলতা লাভ করল । দীর্ঘ কয়েক মাস ধরেই ছাত্রছাত্রীরা যেন ঠিক সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে WBBSEWBCHSE উভয় বোর্ড কতৃপক্ষের নিকট পরীক্ষা পদ্ধতির বিরুদ্ধে । এতো টুইট, এতো মেসেজ, চিঠি পাঠানো সবকিছু শেষে পূর্ণতা লাভ করল । 

দুই পরীক্ষা নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে টানাপড়ন চলার পর মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার শিক্ষার্থীদের ভাগ্য নির্ধারণের জন্য WBBSEWBCHSE উভয় এবং রাজ্য সরকার কর্তৃক এক বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছিল যার উদ্দেশ্য ছিল 72 ঘণ্টার মধ্যে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছানো । CBSE বোর্ডের পরীক্ষা বাতিল করার পরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে । এই কমিটির মধ্যে ছিলেন বিশেষজ্ঞ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ এবং মাধ্যমিক শিক্ষা পর্ষদের সর্বোচ্চ আধিকারিকরা, চিকিৎসক, মনোবিদ, শিশু অধিকার রক্ষা কমিশনের চেয়ারপারশন এবং আরও কিছু স্বেচ্ছাসেবী দলের সদস্যরা । 

এবার অর্থাৎ 2021 সালে মাধ্যমিকের 12 লক্ষ পরীক্ষার্থী এবং উচ্চ মাধ্যমিকের 9 লক্ষ পরীক্ষার্থী এই মিলে মোট 21 লক্ষ ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করছিল এই কমিটির ওপর । কথা অনুসারে, এই বিশেষজ্ঞ কমিটি তাদের মতামত গত 04.06.2021 তারিখ রোজ শুক্রবারে শিক্ষা সংসদের কাছে পাঠিয়ে দেয় । কমিটি অফলাইন পরীক্ষা নেওয়ার ক্ষেত্রে ঘোর বিরোধীতা প্রকাশ করেছিলেন । তারা দশম শ্রেণীর ক্ষেত্রে মাধ্যমিক পরীক্ষা সম্পূর্ণরূপে বর্জন এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে বাড়ি থেকে অনলাইনে অথবা হোম সেন্টার পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলেছিলেন এক্ষেত্রে প্রশ্নপত্র সকলকে স্কুল থেকে পাঠিয়ে দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল এবং পরীক্ষার্থীদের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সেই প্রশ্নপত্রের সমস্ত উত্তরগুলো খাতায় লিখে ছবি অথবা স্ক্যান করে অনলাইনে নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে আপলোড করার কথা বলা হয়েছিল । যাইহোক, শেষমেশ পরীক্ষা নেওয়ার ব্যপারে আর কোনো অবকাশ রইল না, এবার পালা রেজাল্ট নিয়ে । 

বিশেষজ্ঞ কমিটির মতামত অনুযায়ী বলা হয়েছিল মাধ্যমিক ছাত্রছাত্রীদের রেজাল্টের ক্ষেত্রে তাদের নম্বর মূল্যায়ন করা হবে বিগত নবম শ্রেণির পরীক্ষার রেজাল্টের ওপর ভিত্তি করে কিন্তু এতাতেও রয়েছে অনেক মতবিরোধ । অনেকের মতে, এমন অনেক ছাত্রছাত্রী আছে যারা নবম শ্রেনিতে ভালভাবে পড়াশুনা করেনি অথবা করার সুযোগ পায়নি তাদের ক্ষেত্রে তাহলে কী হবে ? কারণ মাধ্যমিক এবং নবম শ্রেনির ব্যপারটা সম্পূর্ণ আলাদা । আবার উচ্চমাধ্যমিক ছাত্রছাত্রীদের রেজাল্টের ক্ষেত্রে বলা হয়েছিল যে, স্কুল থেকে প্রাপ্ত প্রোজেক্টের নাম্বারের ওপর ভিত্তি করে তাদের রেজাল্ট মূল্যায়ন করা হবে । ঠিক একইরকম ভাবে এক্ষেত্রেও রয়েছে সমস্যা, কারণ WBCHSE আগেই বলেছে এইবার সমস্ত ছাত্রছাত্রীকে প্রোজেক্টের সম্পূর্ণ নাম্বারই প্রদান করতে হবে, তাহলে কিভাবে হবে প্রোজেক্টের নাম্বারের ওপর ভিত্তি করে উচ্চমাধ্যমিকের রেজাল্টের মূল্যায়ন । যাইহোক, এই বিষয়েও মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী WBBSEWBCHSE উভয় বোর্ড কতৃপক্ষকে ভেবেচিন্তে দ্রুত সিধান্ত নিতে বলেছেন যাতে ছাত্রছাত্রীদের কোনো সমস্যা না হয় । 21 লক্ষ ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যৎ এর জন্য সুভকামনা রইল। এখনো পর্যন্ত অফিশিয়ালি কেমন করে রেজাল্ট নির্ধারণ করা হবে তেমন কিছু জানানো হয়নি যদি জানানো হয় সবার প্রথমে আমাদের ওয়েবসাইটে পেয়ে যাবেন তাই নিয়মিত আপডেট জানার জন্য ফলো করুন www.bongsedu.com ওয়েবসাইট সহ  Facebook, Instagram , Twitter  , Telegram নিয়মিত ফলো করুন । ধন্যবাদ !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *